নিহত কংগ্রেসীদের আত্মা বলে উঠবে না তো “বিশ্বাসঘাতক” “বেইমান”

বাম আর কংগ্রেসের আঁতাত আজ থেকে নয় | সেই নেহেরুর সময় থেকে | নেহেরুকে বামেরা তোয়াজ করে রাশিয়া নিয়ে গেছিল, নেতাজি মরেছেন না বেঁচে আছেন আলোচনা করার জন্য | রাশিয়া থেকে ফিরে এসেই নেহেরু ঘোষণা করলো “আমি একজন সমাজবাদী” | পরে পরে নেহেরুর দয়া দাক্ষিন্যে কমিউনিস্টরা কংগ্রেসের মন্ত্রিত্ব থেকে শুরু করে নেতার আসন সবই পায় | সরকারের সমস্ত গুরুত্বপূর্ণ সংস্থাগুলোকে দখল করে বামপন্থীরা | এই জোট বা আঁতাত বা সমঝোতা বহুকাল ধরেই চলে আসছে | রাজনৈতিক ক্ষমতায় কংগ্রেস আর বৌদ্ধিক, শৈক্ষিক দ্বায়িত্বে বামপন্থী |

cpim-congress-aliianceএক সময় পরিস্থিতি এমন অবস্থায় চলে যায় যে কমিউনিস্টরা ধীর চালে কংগ্রেস দলটিকে দখল করার চেষ্টাও করতে শুরু করে | আমি কম. কুমারমঙ্গলম-এর সময়ের কথা বলছি | ১৯৭৩ সালে তাই প্লেন দুর্ঘটনা ঘটে কম. কুমারমঙ্গলম-এর | যেমন সাপ তার তেমন লাঠি | আর প্লেন দুর্ঘটনা করানোর অভিজ্ঞতা তো ছিলই | কুমারমঙ্গলম-এর মৃত্যুর পর ১৯৭৪ সালে সঞ্জয় গান্ধীর উত্থানে সেই সময় আর সম্ভব হয় নি কংগ্রেসের রাজনৈতিক দখলের পরিকল্পনা | কিন্তু আগের সমঝোতাটা বজায় থেকেই যায় | সমস্ত গুরুত্বপূর্ণ সরকারী সংস্থায় সরকারী সাহায্যে চলতে থাকে বামেদের আধিপত্য | কেন্দ্রীয় আর্থিক সহায়তা পুষ্ট জওহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ের এডিটরিয়াল বোর্ড দখল করে থাকেন কমিউনিস্ট এস. গোপাল, নুরুল হাসান (যিনি পরে মন্ত্রী হয়েছিলেন), সতীশ চন্দ্র, রমিলা থাপররা | এদের চিরকালের কাজ ছিল কেন্দ্রের আর্থিক সহায়তায় দেশে মার্ক্সবাদের প্রচার, দেশে-বিদেশে প্রমোদ ভ্রমন ও ভোগবিলাসের দেশী বিদেশী উপকরণে উদ্দাম জীবনযাপন | বর্তমান কেন্দ্রীয় সরকার একটু টান মারতেই ভারতবাসীর দৃষ্টি ঘোরাতে আফজল গুরু, ইয়াকুব মেনন, মকবুল, কাশ্মীরের আজাদী ও পাকিস্তান জিন্দাবাদ ধ্বনি দিয়ে জেহাদী জঙ্গী মুসলমানদের আশির্বাদ পেতে চাইছে | প্রতিবছর এরা করাচিতে মানবাধিকার সভায় যায় বলে কারো কাছে দেশপ্রেম কথাটা শুনলেই ক্ষেপে যায় | এদের দেশপ্রেমের ঝাঁপিটা এবার খুলে ধরার প্রয়োজন |

মুসলমানদের আত্মনিয়ন্ত্রণের অধিকার ও পাকিস্তানের দাবি সমর্থন করার পর ১৯৪২ সালের ২৩শে এপ্রিল কমিউনিস্টরা ইংরেজ সরকারের কাছে একটি গোপন স্মারকলিপি দেয় | সেই অনুসারে ১৯৪২ সালের ১২ই মে কমিউনিস্ট পিসি জোশী ব্রিটিশ সরকারের গোয়েন্দা বিভাগের জি আহমেদের সঙ্গে দেখা করেন এবং ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনের বিরুদ্ধে ব্রিটিশ সরকারকে ব্যাপক ও সক্রিয়ভাবে সাহায্য করার প্রতিশ্রুতি দেন | স্বাভাবিকভাবেই ১৯৪২ সালের ২২শে জুলাই কমিউনিস্ট পার্টি ও তাদের শাখা সংগঠনগুলির ওপর থেকে ব্রিটিশ নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়া হয় | (RC Majumder – History of Freedom Movement, Vol-3, Page-689)

ব্রিটিশদের ছিল “ডিভাইড এন্ড রুল” আর এদের হলো “টেররাইজ এন্ড রুল” |
মনে পড়ে ধানতলা, বানতলার কথা ? বরযাত্রী বোঝাই বাস থেকে মহিলাদের তুলে নিয়ে এসে সিপিএম হার্মাদ বাহিনী সারারাত ধর্ষণের পর সকালে পাড়ার লোকের ছুঁড়ে দেওয়া চাদরে মহিলাদের লজ্জা নিবারণের কথা | ওই একই দলের পশুরা বানতলায় অনিতা দেওয়ানের গোপনাঙ্গে দুই ব্যাটারির টর্চ ঢুকিয়ে তার মৃত্যু যন্ত্রণা তাড়িয়ে তাড়িয়ে উপভোগ করেছিল | সে কথা মনে পড়ে ? ধানতলায়, গাড়ির চালক অবনী নায়ার মহিলাদের রক্ষার্থে এগিয়ে এলে তার জননেন্দ্রিয় প্রথমে থেঁতলে দিয়ে পরে উপড়ে ফেলে দেওয়া হয়েছিল | যৌনাঙ্গে রক্তক্ষরণ নিয়েই রেনু ঘোষ দিল্লি চলে যান | আর উমা ঘোষকে কলকাতাতেই এক গোপন স্থানে স্তানান্তরিত করার খবর বর্তমান পত্রিকায় প্রকাশিত হয় | ওই পত্রিকার প্রাক্তন সম্পাদক প্রয়াত বরুন সেনগুপ্ত আর এক সাংবাদিক সুখরঞ্জন সেনগুপ্তকে নিয়ে উমা ঘোষের সাথে দেখা করতে গেলে DYFI আর কোলকাতা পুলিশের চাপে ব্যর্থ হন | এই সব কথা চেপে রাখা হয়েছিল | “Vital Facts Suppressed” শিরোনামে Times of India পত্রিকায় ১২.৬.১৯৯০ তারিখে প্রথম প্রকাশিত হয় | সেই প্রতিবেদনের অধিকাংশই পেয়ে যাবেন দৈনিক স্টেটসম্যান পত্রিকার বিচিত্রায় ৩০শে মে ২০১০ সালের সুখরঞ্জন সেনগুপ্তর নিবন্ধে |

বামফ্রন্টের শরিক দলগুলোও রেহাই পায়নি এদের বিরোধী হত্যার রাজনীতি থেকে | দুবরাজপুরের সিপিআই কর্মী মঙ্গল বাউরি ছিল সিপিএম-এর পথের কাঁটা | তাকে সরাতে প্রথমে তার মাথায় টাঙ্গির কোপ মারে | স্ত্রী যমুনা বাউরি স্বামীকে বাঁচাতে ছুটে এলে তাকে বিবস্ত্র করে পাশবিক উল্লাসে মেতে ওঠে সিপিএমের হার্মাদ বাহিনী | মঙ্গল বাউরির মেয়ের বয়স তখন ছিল ১৪-১৫ | তার ছেঁড়া ফ্রকের ভিতরে হাত ঢুকিয়ে দেয় এই পশুরা | তারপর মঙ্গল বাউরির বুকে বাঁশ চেপে ধরে বৌ-মেয়ের সামনেই তলোয়ার দিয়ে তার গলা কেটে দেয় হার্মাদরা | মনে পড়ে সিপিআই নেতৃবৃন্দ ? না পড়লে ২৮.০৩.২০১০ এর দৈনিক স্টেটসম্যানের বিচিত্রায় গণমুক্তি পরিষদের সুনন্দ সান্যালের নিবন্ধটি পড়ে নিন |

১৯৬৯ সালের ২৫ শে ফেব্রুয়ারী বাংলা কংগ্রেসের নেতা অজয় মুখোপাধ্যায়ের মুখ্যমন্ত্রীত্বে যুক্তফ্রন্ট সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে পশ্চিমবাংলায় সিপিএমের অত্যাচার চরমে উঠেছিল। যুক্তফ্রন্ট সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জ্যোতি বসু সিপিএম পার্টির সমস্ত অনাচার অন্ধ ধৃতরাষ্ট্রর মত উপেক্ষা করে ক্ষমতা ভোগ করতেন। শেষে অবস্থা এতটাই চরমে উঠল যে যুক্তফ্রন্ট সরকারের মুখ্যমন্ত্রী অজয় মুখার্জী নিজেরই সরকারের বিরুদ্ধে বিবৃতি দিয়ে বললেন, ‘এই অসভ্য বর্বর সরকারের মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে থাকতে চাই না’এবং পত্রপাঠ ১৬ই মার্চ, ১৯৭০-এ সিপিএমের উচ্ছৃঙ্খলায় বিরক্ত হয়ে তিনি পদত্যাগ করেন।যুক্তফ্রন্ট সরকারের পতনের ফলে বাংলায় কংগ্রেস সমর্থকরা যতটা উল্লসিত হয়ে ওঠেন, আচমকা ক্ষমতাহীন হয়ে পড়ার আক্রোশে সিপিএম ঠিক ততটাই ফুঁসতে থাকে।

বর্ধমানে সেই সময় কংগ্রেসের দূর্গ টিকিয়ে রেখেছিলেন যাঁরা তাঁদের মধ্যে অন্যতম ছিলেন সাঁই পরিবার। সাঁইরা ছিল বর্ধমানের বড় জোতদার এবং পুরোনো কংগ্রেসি। সেই সময় বর্ধমানে যখন সিপিএম প্রায় একাধিপত্য স্থাপন করে ফেলতে চাইছে তখন সাঁইবাড়ি একরকম শেষ কংগ্রেসি দূর্গ ছিল বলা যায়। সাঁইরা ছিল সাত বোন পাঁচ ভাই- প্রণব, মলয়, নবকুমার, উদয় এবং বিজয়। অভিযোগ, ১৯৬৯ সালের ১১ই ডিসেম্বর বর্ধমানের আলমগঞ্জে কংগ্রেসের সক্রিয় সমর্থক ইন্দ্রভূষণ গড়িয়াকে সিপিএম সমর্থকরা বোমা মেরে খুন করে। সেই হত্যামামলা সংক্রান্ত বিষয়ে সক্রিয় ভূমিকা নিয়েছিল সাঁই পরিবার। ১৬ই মার্চ গোটা রাজ্যের মতো বর্ধমানের কংগ্রেসীরা যুক্তফ্রন্টের পতনে আনন্দিত হয়ে একটা মিছিল বার করে এবং স্বাভাবিক ভাবেই সাঁইরা তাতে অংশগ্রহন করে। নেহাতই নিজেদের অভ্যন্তরীন কোঁদলে যুক্তফ্রন্টের পতনের ফলে উৎফুল্ল কংগ্রেসীদের আনন্দ দেখে ফুঁসতে থাকা সিপিএম ১৭ই মার্চ বাংলা জুড়ে বনধ্ ডাকে, একই সঙ্গে প্রতিশোধস্পৃহা গ্রাস করে তাদের।

ঠিক, ১৭ই মার্চ সাঁইবাড়িতে এক নবজাত শিশু অমৃতের নামকরণ উৎসব ছিল। আচমকা বনধ্ ডাকা হলেও যেহেতু অনুষ্ঠানটি আগে থেকে ঠিক করা এবং কেউ কেউ ইতিমধ্যেই চলে এসেছেন তাই অনুষ্ঠানে কাজকর্ম যথারীতি চলতে থাকে। ঐ দিন সকাল ১০টা নাগাদ সিপিএমের একটা ৫০-৬০ জনের মিছিল বড় রাস্তা ছেড়ে তেলমারুই রোডে সাঁইবাড়ির সরু গলিতে এসে ঢোকে। এইরকম মিছিল আসছে দেখে মলয় প্রণব সাঁই-এর মা মৃগনয়না দেবী ভয় পেয়ে বাড়ির দরজা বন্ধ করে দেন। এই সময় কারা যেন বলে মিছিলে একটা ইট এসে পড়েছে এবং সেটা পড়েছে সাঁই বাড়ির দিক থেকে। চারিদিকে হইচৈ বেধে যায়। পরিকল্পিত ভাবে দাবানলের মত গুজব ছড়িয়ে দেওয়া হয়, সিপিএমের মিছিলে বোমা মেরেছে সাঁই বাড়ির লোকেরা। কিছুক্ষণের মধ্যেই আগে থেকে সাঁইভাইদের সিপিএম বিরোধীতার চরম শিক্ষা দেওয়ার প্রস্তুতি নিয়ে থাকা প্রায় দেড় হাজার সিপিএম সমর্থক দিকবিদিক থেকে ছুটে এসে তীর ধনুক, টাঙ্গি,বল্লম ইত্যাদি নিয়ে সাঁই বাড়ি ঘিরে ফেলে। ভেঙ্গে ফেলে আতঙ্কিত বাসিন্দাদের আত্মরক্ষার্থে বন্ধ করে রাখা বাড়ির সদর দরজা।

এরপরের পৈশাচিক ঘটনাবলীর কথা অনেকেই জানেন। নারকীয় ভাবে বল্লম দিয়ে খুঁচিয়ে খাটের তলা থেকে বার করে খুন করা হয় প্রণব সাঁইকে। ওদের বাড়ির এক দিদিকে বাড়ির উঠোনে চিত করে ফেলে তাকে ঐ অবস্থায় চেপে ধরে তার ছোট ভাই যে বয়সে নিতান্তই তরুণ মলয় সাঁইকে তার Bloody Communism1ওপর উপুর করে ফেলা হয়। তারপর তার গলা হেঁসো (বড় কাস্তে) দিয়ে দু ফাঁক করে দেওয়া হয় দিদির চোখের সামনে। ফিনকি দিয়ে রক্ত দিদির মুখের ওপর ছিটকে পড়ে, কিছুক্ষণ পরে নিথর হয়ে যায় ভাই এর দেহ। বাড়ির গৃহশিক্ষক জীতেন্দ্রনাথ রায় জীবন বাঁচানোর তাগিদে রান্না ঘরের পাশের পাঁচিল দিয়ে পালানোর চেষ্টা করছিলেন, কিন্তু ভাতের ফ্যানে পা পিছলে পড়ে যান। তাঁকেও কুপিয়ে খুন করা হয়। শ্রমিক শ্রেণীর প্রতিনিধি বলে বাগড়ম্বর করা সিপিএমের কমরেডরা বাড়ির দুজন পরিচারকের মাথাও কুড়ুল দিয়ে কুপিয়ে ফেলে। দুজনেই পরের দিন হাসপাতালে মারা যান। এরপর ছেলেদের রক্তমাখা ভাত মৃগনয়না দেবীর মুখে গুঁজে দেয় সিপিএমের বীরপুঙ্গবরা। মৃত ছেলেদের রক্ত ছিটিয়ে দেয় আতঙ্কে স্তব্ধ মায়ের গায়ে। এত কিছুর পরেও আক্রোশ হয়তো মেটেনি, তাই যাওয়ার আগে নরপিশাচরা রান্না ঘরের উনুনে ছুঁড়ে দিয়ে যায় তিনমাসের নিষ্পাপ অসহায় শিশু অমৃতকে, যে পরে হাসপাতালে দীর্ঘ চিকিৎসার পর কোনক্রমে প্রাণে বেঁচে যায়।

ঐ দিন দুপুর সাড়ে বারোটায় ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী হিসাবে দিলীপ কুমার ভট্টাচার্য লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন বর্ধমান থানায়। ঐ অভিযোগের ভিত্তিতে মোট ৬২ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন (কেস নং-৫০, ১৭/০৩/১৯৭০, বর্ধমান থানা) বর্ধমানের তৎকালীন ওসি চিত্ত মুখোপাধ্যায়। মামলা রুজু হয় ১৪৮/১৪৯/৩০৭/৩০২/৪৩৬/৩৮০ ধারায়। এই ঘটনার সাক্ষী খুঁজে পাওয়া খুব মুশকিল হয়েছিল পুলিশের পক্ষে যেহেতু ঘটনাস্থলে সকলেই সিপিএমের লোক ছিল, সাধারন মানুষ ভয়ে তল্লাট ফাঁকা করে পালিয়েছিল কিংবা ঘরে দরজা বন্ধ করে বসেছিল। সমস্ত দোকানের ঝাঁপ পড়ে গিয়েছিল। যারা কৌতূহল বশতঃ ঘটনা প্রত্যক্ষ করার সাহস করেছিল ভয়াবহ হিমশীতল আতঙ্ক তাদের মুখ সেলাই করে রেখেছিল। তবু অনেক কষ্টে পুলিশ ৭৮ জনকে সাক্ষী দেওয়ার জন্য প্রাথমিক ভাবে রাজি করায়। ১৯৭০ সালের ৬ই জুন বর্ধমান টাউন হলে ‘মুখার্জী কমিশন’বসেন সাঁইবাড়ি হত্যার তদন্ত করার জন্য। সেই তদন্ত কমিশনেরসামনে সাক্ষ্য দিয়ে ফেরার পথে সাঁইবাড়ি হত্যাকান্ডের প্রত্যক্ষদর্শী এবং অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ সাক্ষী গুলমনী রায়কে প্রকাশ্য দিবালোকে খুন করা হয়। সাঁইবাড়ির সদস্যদের এবং সাক্ষীদের ওপর সাক্ষ্য না দেওয়ার এবং কেস তুলে নেওয়ার জন্য প্রচন্ড চাপ আসতে থাকে। চাপের মুখে মাথা নোয়াতে না চাওয়ার শাস্তি হিসাবে ঠিক গুলমনী রায়ের মতই সাঁইবাড়ির এক ছেলে নবকুমার সাঁইকে রায়নার আহ্লাদিপুরে টাঙ্গি দিয়ে কুপিয়ে খুন করা হয়। এর ফলে সমস্ত সাক্ষী ভয়ানক ভাবে আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে পড়ে এবং তদন্তের কাজ চালিয়ে যাওয়া অত্যন্ত কঠিন হয়ে যায়। এতদসত্বেও পরবর্তীকালে মামলার তদন্ত যত এগোতে থাকে তদন্তকারীদের সামনে মূল দোষী রাঘববোয়ালদের নাম উঠে আসে। সরাসরি খুন করার জন্য অভিযুক্ত হন সিপি(আই)এম দলের পাঁচ নেতা- মেমারির তৎকালীন বিধায়ক বিনয় কোঙার, খোকন সেন ওরফে নিরুপম সেন, হুগলীর চুঁচুড়ার আরও কয়েকটি কয়েকটি খুনের মামলার আসামী মানিক রায়,সিপিএম নেতা অমল হালদার এবং সেই সময় বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের এসএফআই নেতা পল্টু ব্যানার্জী ওরফে রজত বন্দ্যোপাধ্যায়- যে বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ে এমএ পরীক্ষার সাতটি পেপারের পরীক্ষা দিলেও ঠিক ১৭ই মার্চ, ১৯৭০ এর পর থেকে নিখোঁজ হয়ে যাওয়ায় অষ্টম পেপারের পরীক্ষাটি দিয়ে উঠতে পারেনি।

পুরো হত্যাকান্ডে এবং ষড়যন্ত্রে এদের ভূমিকা স্পষ্ট হওয়ার পর আসানসোল ডিডিআই ১৯৭১ সালের ৮ই ফেব্রুয়ারী সিপিএমের ঐ পঞ্চরত্ন সমেত মোট ১১১ জনের নামে চার্জশিট দাখিল করেন। বর্ধমান দায়রা আদালতে মামলা চলাকালীন সাক্ষীদের ক্রমাগত হুমকি, চাপ এবং উল্টোদিকে জনগণের মনে বাড়তে থাকা অসন্তোষের কারনে মামলা সরিয়ে নিয়ে যাওয়ার আবেদনের ভিত্তিতে কলকাতা হাইকোর্ট ১৯৭৩ সালের ২১ ফেব্রুয়ারী আলিপুর দায়রা আদালতে মামলাটি স্থানান্তরিত করার আদেশ দেন এবং তৃতীয় অতিরিক্ত দায়রা বিচারক গীতেশ ভট্টাচার্যের এজলাসে শুনানি শুরু হয়।

এরপর ১৯৭৭ সালে বামফ্রন্ট সরকার পশ্চিমবঙ্গের মসনদে বসতেই শুরু হয় আসল খেলা। বিভিন্ন ভাবে চেষ্টা চলে আদালতের পিছনের দরজা দিয়ে নৃশংস খুনের দায়ে অভিযুক্ত কমরেডদের বের করে নিয়ে আসার মরিয়া প্রয়াস। সরকারের তরফে প্রধান কৌঁশুলি হিসাবে মামলা লড়ছিলেন জ্যোতির্ম্ময় রায়চৌধুরী। তাঁর সহকারী কৌঁশুলি হিসাবে ছিলেন নরেন্দ্রনাথ দত্ত। সাক্ষীদের ভয়দেখানো ও নানাভাবে চাপ সৃষ্টির পাশাপাশি চলছিল সরকারী কৌঁশুলীদের ওপরও চাপ সৃষ্টি করা হচ্ছিল সমানে। ভেবে দেখুন যে সরকার নিহত ব্যক্তিদের হয়ে হত্যাকারীদের বিরুদ্ধে মামলা লড়ছে সেই হত্যাকারীদের কমরেডরাই ক্ষমতায় এসে বিচার ব্যবস্থাকে পিছন থেকে ছুড়ি মেরে হত্যাকারীদের খালাস করিয়ে দিতে চাইছে! বিচারব্যবস্থার সঙ্গে বামফ্রন্ট সরকারের নির্লজ্জ ব্যভীচারের প্রতিবাদে ইস্তফা দেন সরকারের তরফে সহকারী কৌঁশুলী নরেন্দ্রনাথ দত্ত। কিন্তু এতে শাপে বর হল বামফ্রন্টের। নরেন্দ্রবাবুর পদে সরকারী কৌঁশুলী হিসাবে নিয়োগ করা হল দক্ষিণ কলকাতার সিপিএম নেতা অসিত গঙ্গোপাধ্যায়কে।

এরপর পথের ছোটোখাটো কাঁটাগুলিকে সরিয়ে হত্যাকারীদের মুক্তি ছিল স্রেফ সময়ের অপেক্ষা। সরকারের তরফে সরকারি কৌঁশুলি ১৯৭৭ সালের ২০শে সেপ্টেম্বর তারিখে সিপিএমের ‘পঞ্চরত্ন’ সমেত ৮৩ জনের বিরুদ্ধে মামলা তুলে নেওয়ার জন্য আবেদন করলে বিচারপতি ৩০শে সেপ্টেম্বরের গীতেশরঞ্জন ভট্টাচার্য চারজনের জন্য তা মঞ্জুর করলেও তা বাকিদের বিরুদ্ধে মামলা তোলার আবেদন পুরোপুরি খারিজ করে রায় দেন। এই আদেশের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আবেদন করা হলে হাইকোর্টও হত্যাকরীদের বিরুদ্ধে মামলা প্রত্যাহারের সরকারি আবেদন পুনরায় খারিজ করে দেন।

চাল ভেস্তে যাওয়ায় বামফ্রন্ট সরকার একই খেলা অন্য ছকে খেলার পরিকল্পনা ফাঁদে। এবার টার্গেট করা হয় অভিযোগকারী এবং মূল সাক্ষীদের। যে সরকারি কৌঁশুলিদের সাক্ষীদের সাহায্যে আদালতে সত্য প্রমাণের দায়িত্ব ছিল, তাঁরাই অভিযোগকারী দিলীপ ভট্টাচার্যকে এবং অন্যতম প্রধানসাক্ষী ইতিকা দত্তকে দিয়ে লিখিয়ে নেন যে তাঁরা প্রত্যক্ষদর্শী নন। সাঁই পরিবারের ওপর ক্রমাগত চাপ সৃষ্টি, হত্যার হুমকী, নবকুমার সাঁই এর হত্যা, হত্যাকান্ডের ভয়বহতায় মানসিক ভাবে বিপর্যস্ত হয়ে এক ভাই উদয় সাঁই এর উন্মাদগ্রস্ত হয়ে পড়া এবং কার্যত শ্মশানে পরিণত হওয়া সাঁইবাড়িতে জীবিত দুই ভাই-এর অন্যতম বিজয় সাঁই বা তার দিদি স্বর্ণলতা দেবী এবং জামাইবাবু অমলাকান্ত যশদের সামনে সরকার এবং সাঁইবাড়িকে শ্মশানে পরিণত করে বর্ধমানকে সিপিএমের দূর্গে পরিণত করা বর্ধমানের একচ্ছত্র অধিপতি সিপিএমের ক্রমাগত দ্বিমুখী চাপ ও হুমকির সামনে মাথা নোয়ানো ছাড়া আর কোন রাস্তা রইল না।

comission_story-2তাদেঁর বুকে পাথর চাপা দেওয়া দীর্ঘশ্বাস আর অশ্রুজল পান করে জীবিত থাকার অন্তহীন নরকযন্ত্রণার বিনিময়ে সিপিএমের জহ্লাদেরা মুক্তি পেল ১৯৭৮ সালের ৬ই মে। বাম সরকারের আটঘাট বেঁধে (হ্যাঁ, ততদিনে আলিপুর তৃতীয় দায়রা আদালতের বিচারপতিও বদল হয়ে গেছে!) মোকোদ্দমা প্রত্যাহারের আবেদন আর ফেরানো সম্ভব হল না বিচারপতি করের পক্ষে। বাম সরকারের লাল শালুতে রক্তাক্ত হাত মুছে আদালতের খিড়কী দরজা দিয়ে বেরিয়ে সদর্পে রাজপথে উঠে এল হত্যাকারীরা, তুলে নিল রাজ্যের শাসনভার। পড়ে রইল জনমানবহীন খন্ডহরে পরিণত হওয়া সাঁইবাড়ির হাহাকার আর বর্ধমানের রাস্তায় রাস্তায় উন্মাদ হয়ে যাওয়া উদয় সাঁই-এর আর্তচিৎকার।

বর্তমান পরিস্থিতিতে সিপিএম-কংগ্রেসের আঁতাত দেখে নিহত কংগ্রেসীদের আত্মা বলে উঠবে না তো “বিশ্বাসঘাতক” “বেইমান” ?

৩৪ বছর যারা রিগিং করে বাংলায় ভোটে জিতেছে তাদের মুখে স্বচ্ছ নির্বাচনের বুলি শুনতে কেমন লাগছে আপনাদের ? যাদের ভয়ে আজকের মুখর কবি শংখ ঘোষেরা ছিলেন নির্বাক | বানতলার পৈশাচিক ঘটনায় যাদের মুখ্যমন্ত্রী বলেছিলেন “এ রকম তো কতই হয়”, তাদের সাথে, সাঁইবাড়ির হত্যাকারীদের সাথে সেই কংগ্রেসের জোট, শুনেই মুখ থেকে একটাই কথা বেরোয়…

তাকিয়ে দ্যাখে সাঁইবাড়ি, আর
হাত কংগ্রেসীদের রক্তাক্ত লাশ,
তাদের বুকেই চাদর পেতে
বেজন্মাদের সহবাস।

Please follow and like us:
0

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *