গণদিদিকে এক সাংবাদিকের চিঠি

মাননীয়া দিদি.

আপনার জয় হোক | ভোট আসছে | তাই আপনি এখন কল্পতরু হয়েছেন – বলছে নিন্দুকেরা | আমি বলি – যে যাই বলে বলুক আপনি চালিয়ে যান দিদি | ভোট আসছে বলেই হোক বা অন্য কোনো কারণে হোক সবাই তো কিছু কিছু পাচ্ছে |

এই যেমন আপনি সাইকেল বিলি করেছেন | স্কুলে স্কুলে সাইকেল বিলি | ভোটের আগে গ্রাম থেকে শহর, সব জায়গাতেই উৎসব লেগে গেছে | সাইকেল উৎসব | প্রথমে গরিবদের দিচ্ছিলেন – কিন্তু পড়ে দেখলেন ভোটের শুধু গরিব কেন ? বড়লোক, মাঝারি লোক এরাও তো ভোটার | সুতরাং সবাইকে সাইকেল | নীল সাদা, ম্যাচিং ম্যাচিং সাইকেল | সব স্কুল অবশ্য পায়নি | সিপিএম পরিচালিত স্কুলে না দিয়ে ভালই করেছেন | তবে ওরা আবার এই নিয়ে ছাত্রদের উস্কাচ্ছে | শিলিগুড়ি সহ কয়েকটা জায়গাতে পথ অবরোধ টবরোধ ইত্যাদি করেছে |

কিন্তু দিদি আপনি দমবেন না | সাইকেল বিলি করে যান | যারা পাচ্ছে তারা ভোটার নয় | কিন্তু ওদের বাবা-মা তো ভোটার | আর সাইকেলে তো আর নাম লেখা থাকছে না | তাই বাবা, মা, কাকা, জ্যাঠা, মাসি, পিসি এমনকি গার্লফ্রেন্ডদের বয়ফ্রেন্ড বা বয়ফ্রেন্ডদের গার্লফ্রেন্ড সবাই চালাচ্ছে ওই নীল-সাদা-সবুজ সাথী | যাদের সাইকেল কেনার পয়সা আছে তারাও পাচ্ছে | এমনকি যাদের আগে থেকে সাইকেল আছে, তারাও পাচ্ছে | ফলে সাইকেল এখন পশ্চিমবঙ্গের ব্যবসা বাড়াচ্ছে | সেকেন্ড হ্যান্ড সাইকেল ব্যবসা | OLX, Quickr- এ তো আপনার সাইকেলের ছড়াছড়ি | কে বলেছে রাজ্যে শিল্প নেই ? রাজ্যে ব্যবসা হয় না ? এই তো ব্যবসা | দেখবেন, যদি এটাতেও বাংলাকে এক নম্বর করে ফেলতে পারেন |

কেউ কেউ বলছে এতে নাকি সাইকেল শিল্পের উন্নয়ন হচ্ছে | কিন্তু কোন সংস্থা এত সাইকেলের উৎপাদন করছে সেটা জানতে চাইলেও পাওয়া যাচ্ছে না | সরকারী মহা-গোপন কথা বলে কথা ! আপনি না জানাতেও পারেন | কিন্তু বড্ড ইচ্ছে করে জানতে |

যাই হোক দিদি, এইসব ভাঙ্গা-সাইকেল কথা লেখবার জন্য এই চিঠি নয় | এই চিঠি একচুয়ালি আপনাকে ধন্যবাদ দেওয়ার জন্য | আপনি সাংবাদিকদের জন্য সরকারী খরচে স্বাস্থ্যবিমা শুরু করেছেন শুনে মনটা এত আল্হাদিত হয়েছে কি করব ঠিক করতে পারছি না | কোন যোগ্যতায় পাব জানি না | এমনিতেই প্রাক্তন সৈন্য হিসাবে আমার গোটা পরিবারই স্বাস্থ্য পরিসেবা পায় | আবার এখন যে কোম্পানিতে সুচাকুরে হিসাবে সেবা দিচ্ছি সেই কোম্পানিও গোটা পরিবারের স্বাস্থ্যবিমা করে দিয়েছে | এবার তিন নম্বরটা পাচ্ছি | আমি জানি, সাংবাদিকদের স্বাস্থ্যবিমা উৎসবটা আসলে আমাদের মতো কুঁচো সাংবাদিকদের জন্যই | যারা অযথা কুৎসা ছড়ায় আমাদের দিদির নামে | এবার শালা সবাই চুপ করবে | কথায় বলে “ভাত ছড়ালেই কাক আসবে” | আপনি আগে ছড়িয়েছেন, কাকশিল্পী শুভাদা সমেত বড় বড় কাক পেয়েছেন | তাই এবার এক্কেবারে চট-জাল দিচ্ছেন, কুঁচোকাঁচা, চুনো-পুঁটি, সিতুই-গুগলি সব উঠে আসবে | আর এই ভোটের আগে যা পাওয়া যায় তাই ভালো | আপনার জন্যেও ভালো, আর, আমাদের জন্যেও ভালো |

কিন্তু দিদি আমার মতো দু-এক পিস থেকেই যাবে | যারা জিগ্গেস করবে, এই বদান্যতা সাংবাদিকদের জন্য কেন ? যারা দিন আনে দিন খায়, যারা বিনা চিকিৎসার মরে, তাদের জন্য আপনার মামাটি সরকার এইটা করতে পারত তো ! শুধু দুঃস্থ সাংবাদিকদের জন্য করলেও একটা কথা ছিল | কিন্তু আপনি সব সাংবাদিকদের জন্য একই নিয়ম চালু করেছেন | শুনলাম তৃণমূলের জন্য দেওয়াল আটকে যারা দেওয়াল লেখে তাদের কথা মাথায় রেখেই আপনি এটা করেছেন | সাধুবাদ দিদি | কিন্তু সরকারী চাকরগুলো কি অপরাধ করেছে দিদি ? ডিএ-র টাকা কবে দেবেন দিদি ? রাজ্যের স্কুল-কলেজের শিক্ষক শিক্ষিকারা তো পাইকারী রেটে মার খেলেন আপনার ভাইদের কাছে | তাদের জন্য একটা এক্সিডেন্ট পলিসি অন্তত ফ্রী তে করে দিতে পারতেন দিদি |

দিদি, আপনি যখন রেলমন্ত্রী, তখন থেকে সাংবাদিকদের পটানো শুরু | ফ্রী টিকিট | তারপর এখন, শুনলাম সরকারী বাসেও নাকি ভাড়া নিচ্ছেন না সাংবাদিকদের থেকে | এসি বাসেও না | পুজোর পর পোত্তেক বছরেই আপনি ফ্যাব ইন্ডিয়ার পাঞ্জাবি দেন আপনার চরনামৃতধন্য সাংবাদিকদের | ইতিমধ্যেই সাংবাদিকদের কলকাতায় ফ্রীতে বা সস্তায় ফ্ল্যাট দেওয়ার কথাও বলেছেন শুনলাম | সারাবছরের এই উপঢৌকনকে সাংবাদিকরা তাদের ভাষায় “পোস্ত” বলে, মানে, যে দিচ্ছে তার জন্য কলম ধরার এগ্রিমেন্ট অ্যাডভান্স |

নরেন্দ্র মোদীজি বলছেন, জনদের ক্ষমতা আছে তারা সরকারী ভর্তুকি ছেড়ে দিন | তাতে সারাও পড়েছে বিস্তর | আর আপনি উল্টে যাদের আছে তাদেরকেই আরো পাইয়ে দেওয়ার বন্দোবস্ত করছেন | কিন্তু এইসব করে কি সব মাথা কেনা যাবে দিদি ? এই কলমচি (থুড়ি, কীবোর্ডচি) কিন্তু আপনার এই মহানুভবতায় বিস্মিত, ক্ষুব্ধ |

যদি আবার ক্ষমতায় আসেন, তাহলে আপনার কাছে আরো একটা বিমা করে দেওয়ার অনুরোধ রাখলাম | সেটা হলো পশ্চিমবঙ্গে বাস করার ঝুঁকি নেওয়ার বিমা | নাম দিতে পারেন বঙ্গবিমা বা ব্যঙ্গবিমা |

Please follow and like us:
0

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *