আজ পণ্ডিত দীনদয়াল উপাধ্যায়-এর বলিদান দিবস

img-deendayal

পণ্ডিত দীন দয়াল উপাধ্যায়
জন্ম: 25 সেপ্টেম্বর 1916 মৃত্যু : 11 ফেব্রুয়ারি 1968

ইনি একজন মহান চিন্তাবিদ ও সংগঠক ছিলেন | তিনি ভারতীয় জনসংঘের সভাপতি ছিলেন | ইনি ভারতের সনাতন আদর্শকে যুগানুকুল রূপে ব্যাখ্যা করে অবিচ্ছেদ্য মানবতাবাদের প্রচার করেন | উপাধ্যায়জি অত্যন্ত সহজ এবং ভদ্র মানুষ ছিলেন | তাঁর সাহিত্যের চেয়ে রাজনীতিতে গভীর আগ্রহ ছিল | তাঁর হিন্দি এবং ইংরেজি প্রবন্ধ বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত হয় | একটি সভাতে বসে তিনি পুরো চন্দ্রগুপ্ত নাটকটি লিখে ফেলেছিলেন |

দীনদয়াল উপাধ্যাযয়ের জন্ম 25 সেপ্টেম্বর 1916 মথুরা জেলার ছোট গ্রাম নাগলা চন্দ্রভান-এ হয়েছিল | তাঁর পিতার নাম ভগবতী প্রসাদ উপাধ্যায় | মা রামপেয়ারী ধার্মিক প্রবৃত্তির ছিলেন | দীনদয়ালের ছোট ভাইয়ের নাম শিবদয়াল ছিল | তাঁর পিতা রেলে কাজ করার কারণে বেশির সময় বাইরে থাকতেন | পিতা ভগবতীপ্রসাদ দুইভাইকে তাদের মামারবাড়িতে রেখে মানুষ করেন | তাঁর মাতামহ চুনিলাল সেই সময় ধনকিয়া স্টেশনের স্টেশন মাস্টার ছিলেন | মামার পরিবার বিশাল ছিল | দীনদয়াল মামাতো ভাইদের সাথে বড় হন | পিতা ভগবতীপ্রসাদের মৃত্যুর পর মা রামপেয়ারী গুরুতর অসুস্থ হয়ে পরেন | তিনি যক্ষ্মা রোগে আক্রান্ত হন | 8 ই আগস্ট 1924 রামপেয়ারী মারা যান | 7 বছর বয়সেই দীনদয়াল মা-বাবাকে হারান |

উপাধ্যায় পিলানি, আগ্রা ও এলাহাবাদ থেকে শিক্ষালাভ করেন | তত্কালীন সময়ের বিএসসি, বি.টি. হওয়া সত্বেও তিনি চাকরি করেন নি | ছাত্র জীবনে তিনি আরএসএস-এর একজন সক্রিয় স্বয়ংসেবক হন | অবিলম্বে কলেজ ছাড়ার পরই তিনি আরএসএস-এর প্রচারক হয়ে যান প্রচারের কাজ শুরু করেন |

1951 সালে অখিল ভারতীয় জনসংঘ যখন প্রতিষ্ঠা হয় তখন তাঁকে সংগঠন মন্ত্রী নিযুক্ত করা হয় | দুই বছরের পরে 1953 সালে তিনি অখিল ভারতীয় জনসংঘ-এর সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন এবং প্রায় ১৫ বছর এই পদে থেকে দলের নিরলস সেবা করেন | কালিকট অধিবেশনে (ডিসেম্বর 1967) তিনি অখিল ভারতীয় জনসংঘের সভাপতি নির্বাচিত হন | 11 ফেব্রুয়ারি 1968 সালে রাতে রেলে সফর করার সময় মুঘলসরাই স্টেশনে তাঁকে হত্যা করা হয় |

বিচক্ষণতা, বুদ্ধি, সরলতা এবং নেতৃত্বের অগণিত গুনের মালিক ভারতীয় রাজনীতির এই উজ্জ্বল সূর্য মাত্র 52 বছর বয়সে জাতির জন্য তার জীবন উৎসর্গ করেছেন | তিনি অনাকর্ষক জীবনযাপন করতেন | প্রথম শ্রেনীর দার্শনিক ছিলেন এবং কোনো রকম ভৌতিক মায়া-মোহ ওনাকে দিকভ্রষ্ট করতে পারেনি |

এক নজরে
ইন্টারমিডিয়েট এবং মেট্রিক উভয় পরীক্ষায় স্বর্ণপদক |
কানপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বি.এ. পাশ |
সিভিল সার্ভিস পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়া সত্বেও চাকরিতে যোগদান করেননি |
1937 আরএসএস-এ যোগদান |
1942 থেকে সম্পূর্ণভাবে আরএসএস-এর জন্য কাজ করা |

“রাষ্ট্রধর্ম”, “পাঞ্চজন্য” এবং “স্বদেশ” এর মতো ম্যাগাজিন ও সংবাদপত্র ইনিই শুরু করেন |
1951 সালে যখন ড. শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জি জনসংঘ প্রতিষ্ঠা করেন, তখন উত্তরপ্রদেশ-এর সাধারণ সম্পাদক হন |

——

জনসংঘের রাষ্ট্র-জীবনদর্শনের প্রচারক দীনদয়ালের জীবনের উদ্দেশ্য ছিল স্বাধীনতাকে পূর্ণতা দেওয়ার জন্য বিশুদ্ধ ভারতীয় দর্শনের তত্বদৃষ্টি প্রদান করা | ইনি ভারতের সনাতন আদর্শকে যুগানুকুল রূপে ব্যাখ্যা করে অবিচ্ছেদ্য মানবতাবাদের প্রচার করেন | ইনি সংঘের আর্থিক নীতির রচনা ও উপস্থাপনা করেছিলেন | তিনি মনে করতেন অর্থনৈতিক উন্নয়নের প্রধান উদ্দেশ্য সাধারণ মানুষের সুখ সমৃদ্ধি বৃদ্ধি করা | মানব কল্যানের উদ্দেশ্যই ছিল তাঁর জীবনে প্রধান | মতমত-স্বাধীনতার এই যুগে কমিউনিজম, পুঁজিবাদ, অন্তর্দয়, সর্বদয়, ইত্যাদি প্রধান হয় | কিন্তু জড়জগৎকে সুষম, স্বাস্থ্যকর এবং নিছক পরিপূর্ণতা দ্বারা সুন্দর করে তোলা শুধুমাত্র সনাতন ধর্মের দ্বারা প্রতিপাদিত জীবন বিজ্ঞান, শিল্প ও জীবন দর্শনের দ্বারাই সম্ভব |

তাঁর রাজনৈতিক জীবন দর্শনের মূল কথা ছিল “সংস্কৃতি নিষ্ঠা” | “ভারতে বাস করা এবং ভারতের প্রতি মমত্বভাব রাখা মানুষই “জন” তাদের নিয়েই জনসংঘ | এঁদের তাঁর জীবন ব্যবস্থা, শিল্প, সাহিত্য, দর্শন, সব ভারতীয় সংস্কৃতি | এইজন্য ভারতীয় জাতীয়তাবাদের ভিত্তি ভারতীয় সংস্কৃতি | এই সংস্কৃতিতে নিষ্ঠা থাকলে তবেই ভারত অবিচ্ছেদ্য থাকবে |”

“বসুধৈব কুটুম্বকম” আমাদের সভ্যতা থেকে প্রচলিত হয় | তদনুসারে, সব ধর্মেরই ভারতে সমান অধিকার আছে | একজন ব্যক্তির সংস্কৃতি, শ্রেণী, জাতি, ইত্যাদি থেকে তার মন, নীতিশাস্ত্র, আচার-বিচার, কলা-কৌশল ইত্যাদির পরিচয় পাওয়া যায় | সহজ কথায়, এটা জীবনের শৈলী. ভারতীয় রাষ্ট্রীয় গেজেট-এ ইতিহাস ও সংস্কৃতির সংস্করণে হিন্দু, হিন্দুত্ববাদ ও ভারতীয়তা যে একই শব্দ তার পরিষ্কার বর্ণনা আছে |

তিনি একজন সাংবাদিক, লেখক এবং চিন্তাবিদ ছিলেন | কালিকট অধিবেশনের পর সারা বিশ্বের মিডিয়ার নজর তাঁর ওপর পড়ে | নীচে তাঁর কাজের প্রধান কিছু নাম দেওয়া হলো :

দুই পরিকল্পনা,
রাজনৈতিক ডায়েরি
ভারতীয় অর্থনীতির অবচয়,
সম্রাট চন্দ্রগুপ্ত,
জগৎগুরু শঙ্করাচার্য, এবং
সমাকলন মানবতাবাদ (ইংরেজি: Integral Humanism)
জাতীয়বাদী জীবনের দিক

Please follow and like us:
0

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *